পঞ্জিকা

গ্রেগোরীয় বর্ষপঞ্জী

গ্রেগোরীয়  বর্ষপঞ্জী ( পাশ্চাত্য বর্ষপঞ্জী বা খ্রিষ্টীয় বর্ষপঞ্জী) হলো আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত বর্ষপঞ্জী। ১৫৮২ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি পোপ ত্রয়োদশ গ্রোগোরির এক আদেশনুসারে এই বর্ষপঞ্জীর প্রচলন ঘটে। গ্রোগোরিয় বর্ষপঞ্জীর ব্যাপ্তি ৩৬৫ দিন।

 

ক্রম (Serial) গ্রেগোরীয় সনের মাস ( Months of Gregorian দিন সংখ্যা 

(Length in days)

ক্রম (Serial) গ্রেগোরীয় সনের মাস ( Months of Gregorian দিন সংখ্যা 

(Length in days)

1 January 31 7 July 31
2 February 28/29 8 August 31
3 March 31 9 September 30
4 April 30 10 October 31
5 May 31 11 November 30
6 June 30 12 December 31

 

Leap Year (অধিবর্ষ)

 

অধিবর্ষে মোট দিন থাকে ৩৬৬। গেগ্রোরীয় বর্ষপঞ্জীতে প্রতি চার বছরে একবার ফেব্রুয়ারি মাস এবং বাংলা সনমতে ফাল্গুন মাসে একদিন যোগ করা হয়। অধিবর্ষে ফেব্রুয়ারি এবং ফাল্গুন  যথাক্রমে ২৯ এবং ৩১ দিন হয়।

The total number of days in the leap year is 366. The Gregorian calendar is added once a month in February ‍and According to the Bengali year, Falgun is added one day in the month on every four years. In the leap year, February and Falgun are 29 and 31 days respectively.

৪ দ্বারা বিভাজ্য বছরগুলোতে অধিবর্ষ হয়।যেমন-২০১৬। তবে এই নিয়মের ব্যতিক্রম আছে। যে সব বছর ১০০ দ্বারা বিভাজ্য কিন্তু ৪০০ দ্বারা নয় তাদের অধিবর্ষ থেকে েবাদ দেয়া হয়েছে। যেমন: ৪ দ্বারা বিভাজ্য হওয়া সত্ত্বেও ১৯০০ সাল অধিবর্ষ নয়।কারন এটি ১০০ দ্বারা বিভাজ্য কিন্তু ৪০০ দ্বারা নয়।

 

Bengali Calendar

(বাংলা সন বা বঙ্গাব্দ)

 

ভারতে ইসলামী শাসন আমলে হিজরী পঞ্জিকা অনুসারে সকল কাজকর্ম হতো। মোঘল সম্রাট আকবর প্রচলিত চান্দ্র পঞ্জিকাকে সৌরপঞ্জিকায় রূপান্তরিত করার দ্বায়িত্ব নেন। তিনি ইরান থেকে েআগত বিশিষ্ট বিজ্ঞানী এবং জ্যোতির্বিদ ওমর ফতুল্লা শিরাজীকে হিজরী চান্দ্র বর্ষপঞ্জিকে সৌর বর্ষপঞ্জিতে রূপান্তরিত করার দ্বায়িত্ব দেন। ওমর ফতুল্লা শিরাজীর সুপারিশে সম্রাট আকবর ৯৯২ হিজরী (১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে) – এ বাংলা সৌর বর্ষপঞ্জির প্রবর্তন করেন।তবে তিনি ২৯ বছর পূর্বে তার সিংহাসনে আহরোণের দিন থেকে এ পঞ্জিকা প্রচলনের নিদের্শ দেন।এজন্য ৯৬৩ হিজরী সাল থেকে বঙ্গাব্দ গণনা শুরু হয়।

গ্রেগোরিয়ান সনের মত বাংলা সনেরও মোট ১২টি মাস। বৈশাখ বঙ্গাব্দের প্রথম মাস এবং পহেলা বৈশাখকে নববর্ষ ধরা হয়।

১৯৬৬ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমি কর্তৃক বাংলা সন সংস্কারের উদ্যোগগ্রহণ করা হয়। ড. মুহম্ম্দ শহীদুল্লার নেতৃত্বাধীন একটি কমিটি বাংলা সনের সংস্কার করে। বাংলা সনের ব্যাপ্তি গ্রেগোরিয়ান বর্ষপঞ্জীর মত ৩৬৫ দিন। 

এক নজরে বঙ্গাব্দ

ক্রম

বাংলা মাসের নাম দিনসংখ্যা কাল/ঋতু গ্রেগিারিয়ান তারিখ অনুসারে মাসের দৈর্ঘ্য

বৈশাখ

৩১

গ্রীষ্ম

১৪ এপ্রিল-১৪ মে

জৈষ্ঠ্য

৩১

১৫ মে-১৪ জুন

আষাঢ় ৩১ বর্ষা

১৫ জুন-১৫ জুলাই

শ্রাবন

৩১

১৬ জুলাই-১৫ আগস্ট

ভাদ্র ৩১ শরৎ

১৬ আগস্ট-১৫ সেপ্টেম্বর

আশ্বিন

৩০

১৬ সেপ্টেম্বর-১৫ অক্টোবর

কার্তিক

৩০

হেমন্ত

১৬ অক্টোবর- ১৪ নভেম্বর

অগ্রাহায়ণ

৩০

১৫ নভেম্বর-১৪ ‍ডিসেম্বর

পৌষ ৩০ শীত ১৫ ডিসেম্বর- ১৩ জানুয়ারি

১০

মাঘ ৩০ ১৪ জানুয়ারি- ১২ ফেব্রুয়ারি
১১ ফাল্গুন ৩০/৩১ বসন্ত

১৩ ফেব্রুয়ারি- ১৪ মার্চ

১২ চৈত্র ৩০

১৫ মার্চ- ১৩ এপ্রিল

 

হিজরী বর্ষপঞ্জী

ইসলামি বর্ষপঞ্জী (হিজরী বর্ষপঞ্জী নামেও পরিচিত) একটি চন্দ্রনির্ভর বর্ষপঞ্জীইসলামের দ্বিতীয় খলিফা হযরত ওমর (রা:) ৬৩৮ সালে হিজরী সন প্রবর্তন করেন। তবে হযরত মুহাম্মদ (সা:) মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতের দিন (৬২২ খ্রিস্টাব্দে) থেকে ইসলামী সন গণনা শুরু হয়। 

হিজরী বর্ষপঞ্জী ব্যাপ্তিকাল ৩৫৪ দিন বা ৩৫৫ দিন।এতে মোট ১২টি মাস আছে। ইসলামেী বর্ষপঞ্জীর মাসগুলো যথাক্রমে নিম্নরূপ-

ক্রম

মাস ক্রম মাস

1

মুহররম 7 রজব

2

সফর 8

শাবান

3

রবিউল আউয়াল 9 রমজান
4 রবিউস সানি 10

শাওয়াল

5

জামাদিউল আউয়াল 11

জ্বিলকদ

6 জামাদিউস সানি 12

জ্বিলহজ