সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বলতে ভার্চুয়াল যোগাযোগ ও নেটওয়ার্কের মাধ্যমে মানুষে মানুষে থিস্ক্রিয়াকে বুঝায়।অর্থাৎ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহার করে মানুষ যোগাযোগ ও ভাব প্রকাশের জন্য যা কিছু সৃষ্টি, বিনিময় কিংবা আদান-প্রদান করার জন্য যে মাধ্যম ব্যবহার করে তাকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বা সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট বলে। সামাজিক যোগেযোগের কিছু সাইট নিছে দেওয়া হলো:

সাইটের নাম/Name of Site উদ্ভাবক/Founded by প্রতিষ্ঠাকাল/ Founded ব্যবহারকারীর সংখ্যা/ Users
ফেসবুক/Facebook মার্ক জাকারবার্গ/Mark Zukerbarg ৪ ফেব্রুয়ারি, ২০০৪/4 February, 2004 ২.৪১ বিলিয়ন/2.41 billion
টুইটার/Twitter জ্যাক ডর্সি/Jack Dorsey ২১ মার্চ, ২০০৬/21 March, 2006 ৩২১ মিলিয়ন/321 Million
গুগুল প্লাস/Google Plus+ গুগুল/GOOGLE ২৮ জুন ২০১১/ 28 June, 2011 ১৯৮ মিলিয়ন/198 Million
লিংকডইন/ LinkedIn রেইড হফম্যান/Reid Hoffman ২০০২/2002 ৬৩০ মিলিয়ন/630 Million
পিন্টারেস্ট/Pinterest Paul Sciarra, Evan Sharp & Ben Silbermann ২০১০/ 2010 ২৯১ মিলিয়ন/291 Million
Tumblr ডেভিড কার্প/David Karp ২০০২/2002
ইন্সটাগ্রাম/Instagram কেভিন সিস্ট্রোম ও মাইক ক্রিয়েজার/Kevin Systrom & Mike Krieger  অক্টোবর, ২০১০/

October, 2010

Flickr Stewart Butterfield ২০০৪/ 2004
Vine Dom Hoffmann, Rus Yusupov & Colin Kroll জুন, ২০১২/ June, 2012
VK Vkontakte ২০০৬/2006 ৫০০+ মিলিয়ন/500 Million
Meetup Meetup Inc. ১২ জুন, ২০১২/ 12 June, 2012
Tagged Greg Tseng & Johann Schleier Smith ২০০৪/ 2004
টিকটক/ TikTalk সেপ্টেম্বর ২০১৬/ September, 2016

 

ফেসবুক (Facebook)

ফেসবুকের মালিক হলো ফেসবুক ইনক।  মার্ক জাকারবার্গ হাভৃাড ইউনির্ভাসিটিতে পড়াকালীন তার কক্ষনিবাসী এডওয়ার্ড সেভারিন, ডাস্টিন মস্কোভিতস এবং ক্রিস হিউজেসের যৌথ প্রচেষ্টায় ফেসবুক নির্মাণ করেন।  যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার ম্যানলো পার্কে ফেসবুকের সদরদপ্তর অবস্থিত। মার্ক জাকারবার্গ বর্তমানে ফেসবুকের চেয়ারম্যান ও সিইও (CEO)।

Facebook Account খোলার পদ্ধতি

Facebook Account খোলার জন্য প্রথমে আপনার কাঙ্খিত ওয়েব পেজ (http://engb.facebook.com/login.php) এ ঢুকে এবং ওয়েব পেজ এর সাইন আপ বাটন এ ক্লিক করে, যে নতুন পেজ আসবে তাতে আপনার নাম, ইমেল এড্রেস, পাসওয়ার্ড, জন্ম তারিখ লিখে তারপর কনটিনিই বাটনে ক্লিক করে প্রথম পর্যায়ের  কাজ সমাপ্ত হবে। তারপর নিজ ইমেইল এড্রেসে ঢুকে ইনবক্সে একটি মেইল এসেছে তার উপর ক্লিক করে মেইলটি ওপেন করুন।

দেখা যাবে Facebook link এসেছে তার উপর ক্লিক করলে Facebook Account একটিভ হবে।এখন থেকে আপনি যে কোন ওয়েব পেজ (http://engb.facebook.com/login.php) এড্রেসে ঢুকে আপনার ইউজার নেইম (User Name) পাসওয়ার্ড (Password) লিখে লগ ইন বাটনে ক্লিক করে ফেসবুক ব্যবহার করতে পারবেন।

টুইটার (Twitter)

টুইটার মাইক্রোব্লগিংয়ের একটি ওয়েবসাইট যেখানে ব্যবহারকারী সর্বোচ্চ ১৪০ অক্ষরের বার্তা আদান প্রদান করতে পারে। এই বার্তাগুলোকে টুইট (Tweet) বলা হয়ে থাকে। টুইটারকে ইনাটরনেটের এসএমএস হিসেবে অভিহিত করা হয়ে থাকে। টুইটারের মূল কার্যালয় যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিকো শহরে।

গুগল প্লাস

গুগল প্লাস বা সংক্ষেপে জি প্লাস হচ্ছে গুগল ইনকর্পোরেশনের একটি সোশ্যাল নেটওর্য়াকিং সাইট।

গুগলের সামাজিক নেটওয়ার্ক

গুগলের সামাজিক নেটওয়ার্কের নাম ছিলো Google Buzz যা চালু হয়েছিলো ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১০ সালে। বর্তমানে এর নাম গুগল প্লাস(Google Plus+)।

ইন্সটাগ্রাম

ইন্সটাগ্রাম হচ্ছে স্মার্টফোন এবং এনড্রয়েট ফোনের Application  এর মাধ্যমে তৈরি হওয়া আলোকচিত্র এবং ভিডিওর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। ইন্সটাগ্রাম এর ছবি বর্গাকার এবং ভিডিওর দৈর্ঘ্য সর্বোচ্চ ১৫ সেকেন্ডের হয়। ইন্সটাগ্রাম এর প্রতিষ্ঠাতা কেভিন সিস্ট্রোম ও মাইক ক্রিয়েজার।

লিংকডইন (LinkedIn)

এটি বিজনেস অরিয়েন্টেড বা পেশাজীবীরা বেশি ব্যবহার করে থাকে। এক পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০০৬ সালে এর সদস্যসংখ্যা ২০ মিলিয়নের বেশি। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার মাউন্ট ভিউতে এর সদর দপ্তর অবস্থিত।

পিন্টারেস্ট (Pinterest)

পিন্টারেস্ট একটি সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইট যেখানে ফটো আপলোড সংরক্ষন এবং ফটো শেয়ার করা হয়। এই সাইটে শেয়ারকৃত ছবি বা ভিডিও পিন নামে পরিচিত। যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিকোতে এর সদর দপ্তর অবস্থিত।

ইউটিউব (You Tube)

ইউটিউব একটি ভিডিও শেয়ারিং করার ওয়েবসাইট। এটি অতন্ত্য জনপ্রিয় একটি সাইট যার মধ্যে ভিডিও আপলোড, শেয়ার এবং ভিডিও দেখার সুবিধা রয়েছে।২০০৫ সালে পেপ্যাল প্রতিষ্ঠানের তিনজন প্রাক্তন চাকুরীজীবী চ্যড হারলি, স্টিভ চ্যন এবং বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত জাভেদ করিম কতৃর্ক ইউটিউব প্রতিষ্ঠিত হয়।