The Old English Period

The Old English Period (450-1066)

 

Anglo Saxon Period (450-1066)

 

Anglo Saxon Period কে The Old English Period  বলে।৪৫০ সালে এবং (Saxon জার্মানির উপজাতি ছিলেন) সহ বিভিন্ন দুর্ধর্ষ জাতিগোষ্ঠীর লোকেরা ইংল্যান্ডে এসে ইংলিশ উপজাতিদের পরাজিত করেন। তখন থেকে শুরু হয় যুগ।এর পূর্বে রোমানদের শাষনাধীন ছিল।মূলত, English is a West Germanic Language.

Literature was oral in this period(অলিখিত সাহিত্য)।

আলফ্রেড দ্য গ্রেট ৮৭১ থেকে ৯০১ সাল পর্যন্ত শিক্ষা ও সাহিত্যে বিদ্যোৎসাহী ছিলেন এবং তিনি Anglo Saxon Chronicle সংরক্ষণে অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।

যুগের সাহিত্যিক

ক্যাডমন- Caedmon

ক্যাডমনের জন্ম ৬৩৭ সালে এবং মৃত্যু ৭৩৫ সালে। তাকে ইংরেজি সাহিত্যের আদি কবি (Earliest poet/first known poet in English Literature) বলা হয় (বাংলা সাহিত্যের আদি কবি লুইপা)।তাকে Father of English Sacred Song-ও বলা হয়। ক্যাডমন যা কিছু রচনা করেন তা এংলো -স্যাকসন ভাষাতেই রচনা করেন। এজন্য তাকে এংলো -স্যাকসন যুগের মিল্টন বলা হয়।তাঁর রচিত কাব্য Hymn of Caedmon (হিম অব ক্যাডমন) এবং Paraphrase(প্যারাফ্রেজ)।তাঁর গ্রন্থের মধ্যে সবচেয়ে প্রসিদ্ধ হল- Historia ecclesiastica gentis Anglorum। এছাড়াও তিনি লিখেছেন- Genesis, Exodus, Judith.

 

কেনেউলফ- Cynewulf

He is one of twelve Old English poets Known by name, and one of four whose work is known to survive today.

Juliana তার একটি বিখ্যাত কবিতা।কেই কেই মনে করেন যে Lindisfarne (লিন্ডিসফার্ন) নামক স্থানে তিনি বিশফ ছিলেন।

Famous writing:

Chirst, Elene, Juliana, The Fates of the Apostles (যীশু খ্রীস্টের শিষ্যদের নিয়তি।)

Saint Venerable Bede (673-735)

He is called, “The Father of English Learning” anf he is also known as “First historian in English Language”

(বাংলা সাহিত্যের প্রথম ইতিহাস বিষয়ক গ্রন্থ দীনেশ চন্দ্র সেনের ‘বঙ্গভাষা ও সাহিত্য’।)

He has written ‘The Ecclesiastical History of the English’(ইংরেজদের ধর্মীয় ইতিহাস) আর এ কারনে তিনি “Doctor of the Church” উপাধি পেয়েছেন।

King Alfred the Great (849-899)

King Alfred was a great prose-writer. He reigned over English from 871 to 901. He rearranged education and supervised the compilation of The Anglo-Saxon Chronicle. অর্থাৎ The Anglo-Saxon Chronicle নামে প্রথম গদ্যগ্রন্থ এ যুগে সংকলিত হয়. এটিকে First monument in English Prose বা ইংরেজি গদ্যের আদি নিদর্শন বলা হয়। এ কারনে তাকে Founder of English Prose বলা হয় (বাংলা গদ্যের জনক ‘ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর)। তিনি The Consolation of Philosophy (দর্শনের সান্তনা) নামক আরো একটি গ্রন্থ রচনা করেন।

He was sometimes regardwd as the “Founder of English Prose”. He was the king of Wassex.

  • পরীক্ষার option-এ Alfred the Great বা মধ্যযুগের John Wycliffe এর নাম না থাকলে Elizabethan period এর Francis Bacon কেই Founder of English Prose বলা হবে।

 

Beowulf (বিউলফ)

Beowulf was one of the first long poems in English. It was written anonymously. It consists of 3200 lines of two parts in the style of an epic. The first part deals with hero’s fight with Grendel and the second part deals with hero’s fight with Dragon.

First First monument in English literature

বিউলফ কে The Earliest Epic in England বলা হয়।এটি ৬৫০ সালের দিকে রচিত।(বাংলা সাহিত্যে প্রথম এবং সার্থক মহাকাব্য মাইকেল মধুসূদনের ‘মেঘনাদ বধ-১৮৬১ সালে)

এই Herioc Epic (বিউলফ) টিতে ৩১৮২ টি লাইন ছিল। মহাকাব্যের নায়কের নাম বিউলফ।  

Beowulf  ছাড়াও The Wanderer, The Seafarer, The Husband’s Message, The Wife’s Lament, Traveler প্রভৃতি নামে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কবিতা পাওয়া যায়। এগুলোর সুনির্দিষ্ট কোন লেখকের নাম পাওয়া যায়না।