বিদেশি শব্দ

  বিদেশি শব্দ চায়ের কাপে বিস্কুট ডুবিয়ে খাওয়ার সময় হঠাৎ মাথায় আসলো যে এই চা চীনা শব্দ। আবার বিস্কুট ফরাসি শব্দ। বিস্কুটের সাথে থাকা চানাচুর হিন্দি। চায়ে যে চিনি ও পানি থাকে সেখানে চিনি চীনা অথচ পানি হিন্দি শব্দ। আবার চা ভর্তি পেয়ালাটা ফারসি কিন্তু কাপটা ইংরেজি শব্দ। এদিকে ইংরেজি শব্দটাই আবার পর্তুগিজ। . চা চীনা হলেও কফি কিন্তু তুর্কি শব্দ। আবার কেক পাউরুটির কেক ইংরেজি, পাউরুটি পর্তুগীজ। 😅 একটু দামী খানাপিনায় যাই। আগেই বলে রাখি, খানাপিনা হিন্দী আর দাম গ্রীক। রেস্তোরাঁ বা ব্যুফেতে গিয়ে পিৎজা, বার্গার বা চকোলেট অর্ডার দেয়ার সময় কখনো কি খেয়াল করেছেন, রেস্তোরা আর ব্যুফে দুইটাই ফরাসী ভাষার, সাথে পিৎজাও। পিৎজাতে দেয়া মশলাটা আরবি। মশলাতে দেয়া মরিচটা ফারসি! ❤ . বার্গার কিংবা চপ দুটোই আবার ইংরেজি। কিন্তু চকোলেট আবার মেক্সিকান শব্দ। অর্ডারটা ইংরেজি। যে মেন্যু থেকে অর্ডার করছেন সেটা আবার ফরাসী। ম্যানেজারকে নগদে টাকা দেয়ার সময় মাথায় রাখবেন, নগদ আরবি, আর ম্যানেজার ইতালিয়ান। আর যদি দারোয়ান কে বকশিস দেন, দারোয়ান ও তার বকশিস দুটোই ফারসি। . এবার চল বাজারে, সবজি ফলমূল কিনতে। বাজারটা ফারসি, সবজিও। যে রাস্তা দিয়ে চলছেন সেটাও ফারসি। ফলমূলে আনারস পর্তুগিজ, আতা কিংবা বাতাবিলেবুও। লিচুটা আবার চীনা, তরমুজটা ফারসি, লেবুটা তুর্কী। পেয়ারা-কামরাঙা দুইটাই পর্তুগীজ। পেয়ারার রঙ সবুজটা কিন্তু ফারসি। . ওজন করে আসল দাম দেয়ার সময় মাথায় রাখবেন ওজনটা আরবি, আসল শব্দটাও আসলে আরবি। তবে দাম কিন্তু গ্রীক, আগেই বলেছি। . ধর্মকর্মেও একই অবস্থা। মসজিদ আরবি দরগাহ/ঈদগাহ ফারসি। গীর্জা কিন্তু পর্তুগীজ, সাথে গীর্জার পাদ্রীও। যিশু নিজেই পর্তুগীজ। কেয়াং এদিকে বর্মিজ, সাথে প্যাগোডা শব্দটা জাপানি। আর, মন্দিরের ঠাকুর হলেন তুর্কী। ❤ . আর কি বাকি আছে? ও হ্যাঁ। কর্মস্থল! অফিস আদালতে বাবা, স্কুল কলেজে কিন্ডারগার্টেনে সন্তান। বাবা নিজে কিন্তু তুর্কী, যে অফিসে বসে আছেন সেটা ইংরেজি, তবে আদালত আরবি, আদালতের আইন ফারসি, তবে উকিল আরবি। . ছেলে যে স্কুলে বা কলেজে পড়ে সেটা ইংরেজি, কিন্তু কিন্ডারগার্টেন আবার জার্মান! 🤠 . স্কুলে পড়ানো বই কেতাব দুইটাই আরবি শব্দ। যে কাগজে এত পড়াশোনা সেটা ফারসি। তবে কলমটা আবার আরবি। রাবার পেনসিল কিন্তু আবার ইংরেজি!  

৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা

  ##৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনাঃ ‘সকলের সাথে সমৃদ্ধির পথে’ ★সময়কাল- ২০২১-২০২৫ ★ বাস্তবায়নে ব্যয়- ৬৪,৯৫,৯৮০ কোটি টাকা ★ কর্মসংস্থান- ১ কোটি ১৩ লাখ ★ জিডিপির প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা- ৮.৫১% ★ মূল্যস্ফীতি হবে- ৪.৮% ★ প্রত্যাশিত গড় আয়ু হবে- ৭৪ বছর ★ বিদ্যুত উৎপাদন- ৩০ হাজার মেগাওয়াট ★দারিদ্রের হার- ১৫.৬% ★ চরম দারিদ্র- ৭.৪% >>২৯ ডিসেম্বর, ২০২০ ৮ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার অনুমোদন দেয়া হয়। >>১৯২৮ সালে রাশিয়ায় প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণীত হয়। >>বাংলাদেশের প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা প্রণীত হয় ১ জুলাই, ১৯৭৩ থেকে ৩০ জুন, ১৯৭৮।।  

বাংলা সাহিত্য

  #লাল_নীল_দীপাবলি-পর্ব-৪ বাঙলা সাহিত্যের তিন যুগ–১ ✅বাংলা সাহিত্যের তিনটি যুগ হচ্ছে– প্রাচীন যুগ (৯৫০–১২০০), মধ্যযুগ (১৩৫০–১৮০০) এবং আধুনিক যুগ (১৮০০-……)। ✅প্রাচীন যুগে পাওয়া যায় একটি মাত্র বই– চর্যাপদ। ✅চর্যাপদ রচনা করেছিলেন– বৌদ্ধ সাধকেরা (সহজিয়া)। ✅মঙ্গলকাব্য হচ্ছে– মধ্যযুগের কাব্য। ✅কোন দেবতার মর্ত্যলোকে প্রতিষ্ঠার কাহিনী বলা হয়– মঙ্গলকাব্যে। ✅মধ্যযুগের শ্রেষ্ঠ ফসল– বৈষ্ণব পদাবলি। ✅বৈষ্ণব পদাবলিগুলো আকারে– ছোটো। ✅বৈষ্ণব পদাবলিগুলোর নায়ক–নায়িকা– কৃষ্ণ এবং রাধা। ✅মধ্যযুগে সর্বপ্রথম শুধু মানুষের কথা বলেন– মুসলমান কবিরা। ✅আধুনিক যুগের সবচেয়ে বড় অবদান– গদ্য। ✅বাংলা গদ্যের বিকাশ ঘটান– ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের লেখকেরা। ✅ফোর্ট উইলিয়াম কলেজের লেখকেদের প্রধান ছিলেন– উইলিয়াম কেরি। ✅উইলিয়াম কেরির সহায়ক ছিলেন– রামরাম বসু। (রামরাম বসুকে কেরি সাহেবের মুন্সি নামে ডাকা হত। তিনি উইলিয়াম কেরিকে বাংলা ভাষা শেখান।) ✅বাংলা সাহিত্যের প্রথম উপন্যাস হচ্ছে– প্যারীচাঁদ মিত্রের ‘আলালের ঘরের দুলাল’। ✅বাংলা সাহিত্যের প্রথম মহাকাব্য হচ্ছে– মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘মেঘনাদবধকাব্য’। ✅বাংলা সাহিত্যের প্রথম ট্রাজেডি হচ্ছে– মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘কৃষ্ণকুমারী নাটক’। ✅বাংলা সাহিত্যের প্রথম প্রহসন হচ্ছে– মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘বুড় শালিকের ঘাড়ে রোঁ’। ✅বাংলা সাহিত্যের প্রথম সনেট লেখেন– মাইকেল মধুসূদন দত্ত। “

ভাইবার গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নাবলী

  #ভাইভা_বোর্ডে_সবচেয়ে_বেশি #জিজ্ঞেস_করা_হয়_নিচের_৭৭_টি_প্রশ্নঃ (সরকারি চাকরি/বেসরকারি চাকরিতে) … ভাইভা বোর্ডে যাঁরা থাকেন, তাঁরা কিন্তু নানাভাবে যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমেই আপনাকে তাঁদের প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ দেবেন। একজন চাকরিপ্রার্থীর শিক্ষাগত যোগ্যতার পাশাপাশি তাঁর স্মার্টনেস, উপস্থাপন কৌশল, বাচনভঙ্গি এসব বিষয়ও কিন্তু কম গুরুত্বপূর্ণ নয়। ভাইভা বোর্ডে ঢুকেই অনেকে নিজের অজান্তে প্রথমেই নিজেকে অযোগ্য প্রমাণ করেন বসেন। নিয়োগদাতারা তেমন কোনো প্রশ্ন না করেই বা সৌজন্যতার খাতিরে দু-একটি প্রশ্ন করেই বিদায় করে দেন। এ রকম পরিস্থিতি এড়াতে ও নিজেকে যোগ্য করে উপস্থাপন করার জন্য কিছু কৌশল আছে যা আমরা পরবর্তী পোস্টে আপনাদের কাছে উপস্থাপন করব ; এখন আসি সরকারি এবং বেসরকারি চাকুরীর ভাইভা তে সাধারণত ফ্রেশার এবং চাকুরীর পূর্ব অভিজ্ঞদের যে সকল প্রশ্ন করা হয় সে প্রসঙ্গেঃ ভাইবা বোর্ডে যে প্রশ্নগুলোপ্রায় ই করা হয়- … 1. আপনার নাম কি?- 2. আপনার নামের অর্থ কী?- 3. এই নামের একজন বিখ্যাতব্যক্তির নাম বলুন? 4. আপনার জেলার নাম কী?- 5. আপনার জেলাটি বিখ্যাত কেন?- 6. আপনার জেলার একজন বিখ্যাতমুক্তিযোদ্ধার নাম বলুন?- 7. আপনার বয়স কত?- 8. আজ কত তারিখ? 9. আজ বাংলা কত তারিখ?- 10. আজ হিজরি তারিখ কত?- 11. আপনি কি কোনো দৈনিকপত্রিকা পড়েন?- 12. পত্রিকাটির সম্পাদকের নামকি? 13. আপনার নিজের সম্পর্কে সমালোচনা করুণ। 14. আপনার জেলার নাম কি? জেলা সম্পর্কে ১ মিনিট বলুন। 15. আপনার জেলার বিখ্যাত কিছু মানুষের নাম বলুন এবং তারা কিকারনে বিখ্যাত তা আলোচনা করুণ। 16. আপনার বয়স, জন্ম তারিখ কত? 17. আপনি কি কোন দৈনিকপত্রিকা পড়েন? পড়লে সম্পাদকের নাম কি? 18. বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে যা জানেন তা বলেন? 19. আপনার পরিবার সম্পর্কে বলুন। 20. আমরা আপনাকে কেন চাকুরিটা দিব? 21. বিয়ে করেছেন? কেন করেছেন/করেননি? বিবাহ সম্পর্কে আপনার চিন্তাভাবনা কি? 22. আরো পড়াশুনা করার ইচ্ছা আছে কি? কেন নেই ইচ্ছা? 23. এর আগে কোথায় জব করেছেন? সেখানে কি ধরনের কাজ করেছেন?সে জবটি কেন ছেড়ে দিতে হলো? 24. আপনার নিজের সম্পর্কে (ইংরেজিতে/বাংলাতে) বলুন? 25. আপনার শিক্ষাগত যোগ্যতা সম্পর্কে বলুন? 26. আপনার নিজের Strength / Weakness (SWOT: S-Strength ,W-Weakness, O-Opportunity, T-Threat) কি কি বলে মনে করেন? 27. একটি শব্দে/তিনটি শব্দে আপনি নিজেকে কিভাবে ব্যাখ্যা করবেন? 28. যে পদের জন্য আবেদন করেছেন তাঁকে অন্যগুলোর সঙ্গে কিভাবে তুলনা করবেন? 29. আপনার তিনটি গুন ও দুর্বলতার কথা কি বলতে পারেন? 30. বর্তমান চাকুরীটি কেন ছেড়ে দিতে চান ? 31. ক্যারিয়ারের কোন বিষয়টি নিয়ে আপনি গর্ব করবেন? 32. কোন ধরনের বস ও সহকর্মীদের সাথে কাজ করে সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন সফল হয়েছেন? কেন? 33. একজন উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে চিন্তা করেছিলেন? 34. যেকোনো ১ টি প্রতিষ্ঠানে চাকুরীর সুযোগ পেলে আপনি কোথায় চাকুরী করতেন? 35. আগামীকাল কোটি টাকা হাতে পেয়ে গেলে আপনি কি করবেন? 36. আপনার বস অথবা জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা দ্বারা কি কখনো সততা বিসর্জনের প্রস্তাব পেয়েছেন? 37. আপনার সঙ্গে কাজ করতে না চাওয়ার ১ টি কারণ বলতে পারেন? 38. এতদিন কাজ থেকে দূরে ছিলেন কেন? 39. এই ইন্টার্ভিউয়ের জন্য কিভাবে সময় পেলেন? 40. একটি সমস্যার কথা বলুন যার সমাধান আপনি নিজে করেছেন? 41. আপনি নেতৃত্ব দিয়েছেন বা দলগতভাবে কাজ করেছেন এমন একটি অবস্থার বর্ণনা দিন? 42. আগামী ৫-১০ বছরে নিজেকে কোথায় দেখতে চান 43. আপনাকে আমাদের কেন নিয়োগ দেওয়া উচিত বলে মনে করেন? 44. আমাদের কোম্পানিতেই কেন কাজ করতে চান? 45. হার্ড ওয়ার্ক এবং স্মার্ট ওয়ার্ক বলতে কি বুঝেন? 46. চাপের মধ্যে কাজ করা (Work under Pressure) বলতে কি বুঝেন? 47. ভ্রমন করাকে কিভাবে দেখছেন? প্রয়োজনে ভ্রমন বা ট্রান্সফার হওয়াকে কিভাবে গ্রহন করবেন? 48. আপনার জীবনের লক্ষ্য কি? 49. কি আপনাকে রাগিয়ে তোলে? 50. কি আপনাকে প্রেরণা (Motivation) যোগায়? 51. আপনার জীবনের করা কিছু ক্রিয়েটিভ কাজের উদাহরণ দিন? 52. আপনি কি একা কাজ করতে পছন্দ করেন নাকি দলকে সাথে নিয়ে কাজ করা কে বেশি গুরুত্ব দেন? 53. আপনার করা কিছু দলগত কাজের উদাহরণ দিন? 54. লিডার হিসেবে নিজেকে আপনি ১ থেকে ১০ এর মাঝে কত দিবেন? 55. রিস্ক নিতে কি পছন্দ করেন? 56. আপনার পছন্দের কিছু চাকরি, অফিস লোকেশান এবং কোম্পানির উদাহরণ দিন? ৩২। আমাদের কোম্পানি সম্পর্কে কিছু বলুন? 57. আজ থেকে দশ বছর পর নিজেকে কোথায় দেখতে চান নিজেকে? 58. আপনার আগের কোম্পানি থেকে কেনো চাকরি ছেড়ে দিতে (Resign) দিতে চাচ্ছেন? 59. কাজ থেকে কেন অনেক দিন বাহিরে ছিলেন? 60. অনেক গুলি কোম্পানি কেনো পরপর পরিবর্তন করেছেন? 61. আপনার করা সবচেয়ে বিরক্তিকর কাজ কি ছিলো? 62. সবচেয়ে কঠিন যে চ্যালেঞ্জ নিয়ে কাজ করেছিলেন তা কি ছিলো? 63. আপনাকে যদি আমরা নিয়োগ দেই কি কি পরিবর্তন আপনি আনতে পারবেন বলে মনে করছেন? 64. আপনার কি মনে হয় যে আপনি আপনার আগের কাজে আপনার সর্বোচ্চটা দিয়েছিলেন? 65. আপনার চেয়ে বয়সে ছোট কাউকে রিপোর্ট করাকে কিভাবে দেখবেন আপনি? ৪২। আপনি কি আপনাকে সফল মনে করেন? 66. আপনার জ্ঞান বৃদ্ধির জন্য বিগত বছরে কি কি করেছেন? 67. আর কোথায় কোথায় চাকরির জন্য আবেদন করেছেন? 68. আমাদের কোম্পানির কারো সাথে কি পরিচয় আছে? 69. আপনাকে যদি নিয়োগ দেওয়া হয় কত দিন আমাদের সাথে কাজ করার ইচ্ছে আছে? 70. আপনি কি কাউকে কখনো চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছেন? কেন করেছিলেন, কি পন্থা অবলম্বন করে করেছিলেন? তখন আপনার প্রতিক্রিয়া কি ছিলো? 71. ব্যখ্যা করুন আপনি কিভাবে আমাদের জন্য মূল্যবান সম্পদ হবেন? 72. আপনার দেওয়া কোন সাজেশন ম্যানেজমেন্ট গ্রহন করেছে এমন একটি উদাহরণ দিন? 73. আপনার কলিগদের আপনার সম্পর্কে কি মন্তব্য? 74. নতুন টেকনোলজিকে কিভাবে গ্রহন করছেন আপনি? কি কি সফটওয়্যার এর সাথে আপনি পরিচিত? 75. আপনার শখ কি বা কি করতে ভালো লাগে? 76. আপনার নিজের সময় জ্ঞান সম্পর্কে বলুন? 77. আপনি কেমন বেতন আশা করছেন বা আপনার সেলারি এক্সপেকটেশন কি? ইন্টারভিউয়ের শেষে সাধারণত জানতে চাওয়া হয়, ‘আপনার কি কিছু জানার আছে?’ প্রশ্ন তো জানা হলো। এবার উত্তরের পালা। এসকল প্রশ্নের পিছনের রহস্য কি, কেনো আপনাকে এ ধরনের প্রশ্ন করা হয় আর কি হতে পারে এর সম্ভাব্য উত্তর? …

গনিত

বীজগাণিতিক সূত্রাবলী 1.📷 (a+b)²= a²+2ab+b² 2.📷 (a+b)²= (a-b)²+4ab 3.📷 (a-b)²= a²-2ab+b² 4.📷 (a-b)²= (a+b)²-4ab 5.📷 a² + b²= (a+b)²-2ab. 6.📷 a² + b²= (a-b)²+2ab. 7.📷 a²-b²= (a +b)(a -b) 8.📷 2(a²+b²)= (a+b)²+(a-b)² 9.📷 4ab = (a+b)²-(a-b)² 10.📷 ab = {(a+b)/2}²-{(a-b)/2}² 11.📷 (a+b+c)² = a²+b²+c²+2(ab+bc+ca) 12.📷 (a+b)³ = a³+3a²b+3ab²+b³ 13.📷 (a+b)³ = a³+b³+3ab(a+b) 14.📷 a-b)³= a³-3a²b+3ab²-b³ 15.📷 (a-b)³= a³-b³-3ab(a-b) 16.📷 a³+b³= (a+b) (a²-ab+b²) 17.📷 a³+b³= (a+b)³-3ab(a+b) 18.📷 a³-b³ = (a-b) (a²+ab+b²) 19.📷 a³-b³ = (a-b)³+3ab(a-b) 20. (a² + b² + c²) = (a + b + c)² – 2(ab + bc + ca) 21.📷 2 (ab + bc + ca) = (a + b + c)² – (a² + b² + c²) 22.📷 (a + b + c)³ = a³ + b³ + c³ + 3 (a + b) (b + c) (c + a) 23.📷 a³ + b³ + c³ – 3abc =(a+b+c)(a² + b²+ c²–ab–bc– ca) 24.📷 a3 + b3 + c3 – 3abc =½ (a+b+c) { (a–b)²+(b–c)²+(c–a)²} 25.📷(x + a) (x + b) = x² + (a + b) x + ab 26.📷 (x + a) (x – b) = x² + (a – b) x – ab 27.📷 (x – a) (x + b) = x² + (b – a) x – ab 28.📷 (x – a) (x – b) = x² – (a + b) x + ab 29.📷 (x+p) (x+q) (x+r) = x³ + (p+q+r) x² + (pq+qr+rp) x +pqr 📷📷আয়তক্ষেত্র📷 1.আয়তক্ষেত্রের ক্ষেত্রফল = (দৈর্ঘ্য × প্রস্থ) বর্গ একক 2.আয়তক্ষেত্রের পরিসীমা = 2 (দৈর্ঘ্য+প্রস্থ)একক 3.আয়তক্ষেত্রের কর্ণ = √(দৈর্ঘ্য²+প্রস্থ²)একক 4.আয়তক্ষেত্রের দৈর্ঘ্য= ক্ষেত্রফল÷প্রস্ত একক 5.আয়তক্ষেত্রের প্রস্ত= ক্ষেত্রফল÷দৈর্ঘ্য একক 📷📷বর্গক্ষেত্র📷 1.বর্গক্ষেত্রের ক্ষেত্রফল = (যে কোন একটি বাহুর দৈর্ঘ্য)² বর্গ একক 2.বর্গক্ষেত্রের পরিসীমা = 4 × এক বাহুর দৈর্ঘ্য একক 3.বর্গক্ষেত্রের কর্ণ=√2 × এক বাহুর দৈর্ঘ্য একক 4.বর্গক্ষেত্রের বাহু=√ক্ষেত্রফল বা পরিসীমা÷4 একক 📷📷ত্রিভূজ📷 1.সমবাহু ত্রিভূজের ক্ষেত্রফল = √¾×(বাহু)² 2.সমবাহু ত্রিভূজের উচ্চতা = √3/2×(বাহু) 3.বিষমবাহু ত্রিভুজের ক্ষেত্রফল = √s(s-a) (s-b) (s-c) এখানে a, b, c ত্রিভুজের তিনটি বাহুর দৈর্ঘ্য, s=অর্ধপরিসীমা ★পরিসীমা 2s=(a+b+c) 4সাধারণ ত্রিভূজের ক্ষেত্রফল = ½ (ভূমি×উচ্চতা) বর্গ একক 5.সমকোণী ত্রিভূজের ক্ষেত্রফল = ½(a×b) এখানে ত্রিভুজের সমকোণ সংলগ্ন বাহুদ্বয় a এবং b. 6.সমদ্বিবাহু ত্রিভূজের ক্ষেত্রফল = 2√4b²-a²/4 এখানে, a= ভূমি; b= অপর বাহু। 7.ত্রিভুজের উচ্চতা = 2(ক্ষেত্রফল/ভূমি) 8.সমকোণী ত্রিভুজের অতিভুজ =√ লম্ব²+ভূমি² 9.লম্ব =√অতিভূজ²-ভূমি² 10.ভূমি = √অতিভূজ²-লম্ব² 11.সমদ্বিবাহু ত্রিভুজের উচ্চতা = √b² – a²/4 এখানে a= ভূমি; b= সমান দুই বাহুর দৈর্ঘ্য। 12.★ত্রিভুজের পরিসীমা=তিন বাহুর সমষ্টি 📷📷রম্বস📷 1.রম্বসের ক্ষেত্রফল = ½× (কর্ণদুইটির গুণফল) 2.রম্বসের পরিসীমা = 4× এক বাহুর দৈর্ঘ্য 📷📷সামান্তরিক📷 1.সামান্তরিকের ক্ষেত্রফল = ভূমি × উচ্চতা = 2.সামান্তরিকের পরিসীমা = 2×(সন্নিহিত বাহুদ্বয়ের সমষ্টি) 📷📷ট্রাপিজিয়াম📷 1. ট্রাপিজিয়ামের ক্ষেত্রফল =½×(সমান্তরাল বাহু দুইটির যােগফল)×উচ্চতা 📷📷 ঘনক📷 1.ঘনকের ঘনফল = (যেকোন বাহু)³ ঘন একক 2.ঘনকের সমগ্রতলের ক্ষেত্রফল = 6× বাহু² বর্গ একক 3.ঘনকের কর্ণ = √3×বাহু একক 📷📷আয়তঘনক📷 1.আয়তঘনকের ঘনফল = (দৈৰ্ঘা×প্রস্ত×উচ্চতা) ঘন একক 2.আয়তঘনকের সমগ্রতলের ক্ষেত্রফল = 2(ab + bc + ca) বর্গ একক [ যেখানে a = দৈর্ঘ্য b = প্রস্ত c = উচ্চতা ] 3.আয়তঘনকের কর্ণ = √a²+b²+c² একক 4. চারি দেওয়ালের ক্ষেত্রফল = 2(দৈর্ঘ্য + প্রস্থ)×উচ্চতা 📷📷বৃত্ত📷 1.বৃত্তের ক্ষেত্রফল = πr²=22/7r² {এখানে π=ধ্রুবক 22/7, বৃত্তের ব্যাসার্ধ= r} 2. বৃত্তের পরিধি = 2πr 3. গোলকের পৃষ্ঠতলের ক্ষেত্রফল = 4πr² বর্গ একক 4. গোলকের আয়তন = 4πr³÷3 ঘন একক 5. h উচ্চতায় তলচ্চেদে উৎপন্ন বৃত্তের ব্যাসার্ধ = √r²-h² একক 6.বৃত্তচাপের দৈর্ঘ্য s=πrθ/180° , এখানে θ =কোণ 📷সমবৃত্তভূমিক সিলিন্ডার / বেলন📷 সমবৃত্তভূমিক সিলিন্ডারের ভূমির ব্যাসার্ধ r এবং উচ্চতা h আর হেলানো তলের উচ্চতা l হলে, 1.সিলিন্ডারের আয়তন = πr²h 2.সিলিন্ডারের বক্রতলের ক্ষেত্রফল (সিএসএ) = 2πrh। 3.সিলিন্ডারের পৃষ্ঠতলের ক্ষেত্রফল (টিএসএ) = 2πr (h + r) 📷সমবৃত্তভূমিক কোণক📷 সমবৃত্তভূমিক ভূমির ব্যাসার্ধ r এবং উচ্চতা h আর হেলানো তলের উচ্চতা l হলে, 1.কোণকের বক্রতলের ক্ষেত্রফল= πrl বর্গ একক 2.কোণকের সমতলের ক্ষেত্রফল= πr(r+l) বর্গ একক 3.কোণকের আয়তন= ⅓πr²h ঘন একক 📷✮বহুভুজের কর্ণের সংখ্যা= n(n-3)/2 ✮বহুভুজের কোণগুলির সমষ্টি=(2n-4)সমকোণ এখানে n=বাহুর সংখ্যা ★চতুর্ভুজের পরিসীমা=চার বাহুর সমষ্টি 📷ত্রিকোণমিতির সূত্রাবলীঃ📷 1. sinθ=लম্ব/অতিভূজ 2. cosθ=ভূমি/অতিভূজ 3. taneθ=लম্ব/ভূমি 4. cotθ=ভূমি/লম্ব 5. secθ=অতিভূজ/ভূমি 6. cosecθ=অতিভূজ/লম্ব 7. sinθ=1/cosecθ, cosecθ=1/sinθ 8. cosθ=1/secθ, secθ=1/cosθ 9. tanθ=1/cotθ, cotθ=1/tanθ 10. sin²θ + cos²θ= 1 11. sin²θ = 1 – cos²θ 12. cos²θ = 1- sin²θ 13. sec²θ – tan²θ = 1 14. sec²θ = 1+ tan²θ 15. tan²θ = sec²θ – 1 16, cosec²θ – cot²θ = 1 17. cosec²θ = cot²θ + 1 18. cot²θ = cosec²θ – 1 📷📷 বিয়ােগের সূত্রাবলি📷 1. বিয়ােজন-বিয়োজ্য =বিয়োগফল। 2.বিয়ােজন=বিয়ােগফ + বিয়ােজ্য 3.বিয়ােজ্য=বিয়ােজন-বিয়ােগফল 📷📷 গুণের সূত্রাবলি📷 1.গুণফল =গুণ্য × গুণক 2.গুণক = গুণফল ÷ গুণ্য 3.গুণ্য= গুণফল ÷ গুণক 📷📷 ভাগের সূত্রাবলি📷 নিঃশেষে বিভাজ্য না হলে। 1.ভাজ্য= ভাজক × ভাগফল + ভাগশেষ। 2.ভাজক= (ভাজ্য— ভাগশেষ) ÷ ভাগশেষ। 3.ভাগফল = (ভাজ্য — ভাগশেষ)÷ ভাজক। *নিঃশেষে বিভাজ্য হলে। 4.ভাজক= ভাজ্য÷ ভাগফল। 5.ভাগফল = ভাজ্য ÷ ভাজক। 6.ভাজ্য = ভাজক × ভাগফল। 📷📷ভগ্নাংশের ল.সা.গু ও গ.সা.গু সূত্রাবলী 📷 1.ভগ্নাংশের গ.সা.গু = লবগুলাের গ.সা.গু / হরগুলাের ল.সা.গু 2.ভগ্নাংশের ল.সা.গু =লবগুলাের ল.সা.গু /হরগুলার গ.সা.গু 3.ভগ্নাংশদ্বয়ের গুণফল = ভগ্নাংশদ্বয়ের ল.সা.গু × ভগ্নাংশদ্বয়ের গ.সা.গু. 📷গড় নির্ণয় 📷 1.গড় = রাশি সমষ্টি /রাশি সংখ্যা 2.রাশির সমষ্টি = গড় ×রাশির সংখ্যা 3.রাশির সংখ্যা = রাশির সমষ্টি ÷ গড় 4.আয়ের গড় = মােট আয়ের পরিমাণ / মােট লােকের সংখ্যা 5.সংখ্যার গড় = সংখ্যাগুলাের যােগফল /সংখ্যার পরিমান বা সংখ্যা 6.ক্রমিক ধারার গড় =শেষ পদ +১ম পদ /2 📷📷সুদকষার পরিমান নির্নয়ের সূত্রাবলী📷 1. সুদ = (সুদের হার×আসল×সময়) ÷১০০ 2. সময় = (100× সুদ)÷ (আসল×সুদের হার) 3. সুদের হার = (100×সুদ)÷(আসল×সময়) 4. আসল = (100×সুদ)÷(সময়×সুদের হার) 5. আসল = {100×(সুদ-মূল)}÷(100+সুদের হার×সময় ) 6. সুদাসল = আসল + সুদ 7. সুদাসল = আসল ×(1+ সুদের হার)× সময় |[চক্রবৃদ্ধি সুদের ক্ষেত্রে]। 📷📷লাভ-ক্ষতির এবং ক্রয়-বিক্রয়ের সূত্রাবলী📷 1. লাভ = বিক্রয়মূল্য-ক্রয়মূল্য 2.ক্ষতি = ক্রয়মূল্য-বিক্রয়মূল্য 3.ক্রয়মূল্য = বিক্রয়মূল্য-লাভ অথবা ক্রয়মূল্য = বিক্রয়মূল্য + ক্ষতি 4.বিক্রয়মূল্য = ক্রয়মূল্য + লাভ অথবা বিক্রয়মূল্য = ক্রয়মূল্য-ক্ষতি 📷📷1-100 পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যামনে রাখার সহজ উপায়ঃ📷 শর্টকাট :- 44 -22 -322-321 ★1থেকে100পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=25টি ★1থেকে10পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=4টি 2,3,5,7 ★11থেকে20পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=4টি 11,13,17,19 ★21থেকে30পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=2টি 23,29 ★31থেকে40পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=2টি 31,37 ★41থেকে50পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=3টি 41,43,47 ★51থেকে 60পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=2টি 53,59 ★61থেকে70পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=2টি 61,67 ★71থেকে80 পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=3টি 71,73,79 ★81থেকে 90পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=2টি 83,89 ★91থেকে100পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা=1টি 97 📷1-100 পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যা 25 টিঃ 2,3,5,7,11,13,17,19,23,29,31,37,41,43,47,53,59,61,67,71,73,79,83,89,97 📷1-100পর্যন্ত মৌলিক সংখ্যার যোগফল 1060। 📷1.কোন কিছুর গতিবেগ= অতিক্রান্ত দূরত্ব/সময় 2.অতিক্রান্ত দূরত্ব = গতিবেগ×সময় 3.সময়= মোট দূরত্ব/বেগ 4.স্রোতের অনুকূলে নৌকার Read more

বাংলা সাহিত্য

বাংলা সাহিত্য অংশ (এক মলাটে) প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের প্রথম জীবনীকাব্য কাকে অবলম্বন করে লেখা হয়? ক.চন্দ্রাবতীকে খ.লুইপাকে গ.শ্রীচৈতন্যদেবকে ঘ.শ্রীকৃষ্ণকে উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ বাংলা ভাষার প্রথম কবিতা সংকলন- ক.চর্যাপদ খ.বৈষ্ণব পদাবলী গ.ঐতরেয় আরণ্যক ঘ.দোহা কোষ উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ শবর পা কে ছিলেন? ক.আদি সিদ্ধাচার্য খ.চর্যাকর গ.শবরীর পতি ঘ.হস্তীবিশারদ উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ্র মতে প্রাচীনতম চর্যাকার কে? ক.ভূসুকুপা খ.সরহপা গ.শবরপা ঘ.কাহ্নপা উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ বাংলা ভাষার প্রথম কাব্য সংকলন ‘চর্যাপদ’ এর আবিষ্কারক– ক.ডক্টর মুহম্মদ শহীদুল্লাহ খ.ডক্টর সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় গ.হরপ্রসাদ শাস্ত্রী ঘ.ডক্টর সুকুমার সেন উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ জীবনীকাব্য রচনার জন্য বিখ্যাতঃ ক.ফকির গরীবুল্লাহ খ.নরহরি চক্রবর্তী গ.বিপ্রদাস পিপিলাই ঘ.বৃন্দাবন দাস উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাগীতি আবিষ্কার করেন- ক.দীনেশচন্দ্র সেন খ.মহাকবি বাল্মিকী গ.ড. মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ ঘ.হরপ্রসাদ শাস্ত্রী উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাপদের ভাষাকে পণ্ডিতগণ কোন ধরনের ভাষা বলেছে? ক.আর্য ভাষা খ.প্রকৃত ভাষা গ.পালি ভাষা ঘ.সন্ধ্যা ভাষা উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাপদের বেশির ভাগ পদ কত চরণে রচিত? ক.আট খ.চৌদ্দ গ.বারো ঘ.দশ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ্র মতে চর্যাপদের রচনাকালঃ ক.৬০০ – ৮০০ খ্রিস্টাব্দ খ.৬০০ – ১০০০ খ্রিস্টাব্দ গ.৮০০ – ১২০০ খ্রিস্টাব্দ ঘ.৬০০ – ১২০০ খ্রিস্টাব্দ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাপদের মূল প্রতিপাদ্য বিষয়- ক.কাহিনীকাব্য খ.গীতিকাব্য গ.বৌদ্ধধর্মের দোঁহা ঘ.পূজা-অর্চনার রীতি উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ চর্যাপদের রচনার উদ্দেশ্য– ক.সাহিত্য চর্চা খ.ধর্মচর্চা গ.সঙ্গীত চর্চা ঘ.কোনটিই নয় উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ চর্যাপদের উল্লেখযোগ্য সংস্কৃত টিকাকার কে? ক.হরপ্রসাদ শাস্ত্রী খ.মুনিদত্ত গ.সুনীতিকুমার ঘ.ড. শহীদুল্লাহ উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস কত বছরের পুরনো বলে মনে করা হয়? ক.এক হাজার খ.দু হাজার গ.তিন হাজার ঘ.চার হাজার উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ চর্যাপদ কোথা থেকে আবিস্কৃত হয়েছে? ক.তিব্বত খ.বাংলাদেশ গ.নেপাল ঘ.চীন উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ বাংলা লিপির উৎপত্তি কোন লিপি থাকে? ক.খরোষ্ঠী লিপি খ.ব্রাহ্মী লিপি গ.অশোক লিপি ঘ.প্রকৃত লিপি উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বৌদ্ধদের কোন সম্প্রদায়ের সাধকগণ চর্যাপদ রচনা করেন? ক.মহাযানী খ.সহজযানী গ.হীন যানী ঘ.বজ্রযানী উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ উল্লিখিত কোন রচনাটি পুঁথি সাহিত্যের অন্তর্গত নয়? ক.ময়মনসিংহ গীতিকা খ.ইউসুফ জুলেখা গ.পদ্মাবতী ঘ.লাইলী মজনু উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ ‘খনার বচন’ কি সংক্রান্ত? ক.কৃষি খ.ব্যবসা গ.শিল্প ঘ.রাজনীতি উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ বাংলা ভাষার প্রথম কাব্য সংকলন চর্যাপদ এর আবিষ্কারক? ক.ডক্টর মুহম্মদ শহীদুললাহ খ.ডক্টর সুনীতিকুমার চট্টোপাধ্যায় গ.হরপ্রাসাদ শাস্ত্রী ঘ.ডক্টর সুকুমার সেন উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন পাওয়া যায় কোথায়? ক.আসামে খ.সোনারগাঁয়ে গ.পশ্চিমবঙ্গে ঘ.নেপালে উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কাকে চর্যার আদি কবি মনে করেন? ক.লুই পা খ.কাহ্ন পা গ.ভুসুক পা ঘ.টেন্টন পা উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ প্রাচীন যুগে সমাজ জীবনে প্রভাব ছিলঃ ক.ধর্মীয় চেতনার খ.রূপকথার গ.উপকথার ঘ.কোনটিই নয় উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ চর্যাপদ আবিষ্কার হয় কোন দেশ থেকে? ক.চীন খ.নেপাল গ.মিয়ানমার ঘ.ভারত উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের আদি গ্রন্থ চার্যপদে’র রচনাকাল- ক.সপ্তম থেকে দ্বাদশ খ.অষ্টম থেকে চতুর্দশ শতক গ.নবম থেকে চতুর্দশ শতক ঘ.দশম থেকে চতুর্দশ শতক উত্তরঃ ক প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের আদি নিদর্শন- ক.শূণ্য পুরাণ খ.নিরঞ্জনের রুষ্মা গ.সেক শুভোদয়া ঘ.চর্যাপদ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ হরপ্রসাদ শাস্ত্রী ‘চর্যাপদ’ যে গ্রন্থে প্রকাশ করেছিলেন তার নাম হল- ক.চর্যাপদাবলি খ.হাজার বছরের পুরাণ বাঙ্গালা ভাষায় বৌদ্ধগান ও দোহা গ.চর্যাচর্যবিনিশ্চয় ঘ.চর্যাগীতিকা উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ চর্যাপদ প্রথম প্রকাশিত হয়– ক.নেপাল থেকে খ.মোহামেডান লিটালারি সোসাইটি থেকে গ.বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ থেকে ঘ.ওপরের কোনটিই নয় উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ কাহ্নপা বিরচিত পদের সংখ্যা কত? ক. ২টি খ.৫টি গ.৭টি ঘ.১৩টি উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাপদ আবিস্কৃত হয় কোথা থেকে? ক.আরকান রাজগ্রন্থাগার থেকে খ.বাঁকুড়ার এক গ্রহস্থের গোয়াল ঘর থেকে গ.নেপালের রাজগ্রন্থশালা ঘ.সুদূর চীন দেশ থেকে উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ চর্যাপদ যে বাংলা ভাষায় রচিত এটি প্রথম কে প্রমাণ করেন ? ক.হরপ্রসাদ শাস্ত্রী খ.সুকুমার সেন গ.মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ঘ.ড. সুনীতিকুমার চট্রোপাধ্যায় উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ গদ্য-পদ্য মিলিয়ে ‘সেক শুভোদয়া’ গ্রন্থে অধ্যায় আছে– ক.১২ টি খ.১৪ টি গ.১৭ টি ঘ.১৫ টি উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ প্রাচীন যুগের সাহিত্যের উপকরণ হিসেবে পাওয়া যায়ঃ ক.উপকথা খ.রূপকথা গ.পুঁথি ঘ.কোনটিই নয় উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের ইতিহাসে প্রথম গ্রন্থ কোনটি? ক.বেদ খ.শূন্যপূরাণ গ.মঙ্গল কাব্য ঘ.চর্যাপদ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ চর্যাপদের ভাষায় কোন অঞ্চলের ভাষার নমুনা পরিলক্ষিত হয়? ক.নেপালের প্রাচীন কথ্য ভাষা খ.পশ্চিম বাংলার প্রাচীন কথ্য ভাষা গ.পূর্ব বাংলার প্রাচীন কথ্য ভাষা ঘ.ত্রিপিটকের ভাষা উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ উল্লিখিতদের মধ্যে কে প্রাচীন যুগের কবি নন? ক.কাহ্নপাদ খ.লুইপাদ গ.শান্তিপাদ ঘ.রমনীপাদ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ বাংলা ভাষার প্রাচীন নিদর্শন- ক.পুঁথি সাহিত্য খ.খনার বচন গ.নাথ সাহিত্য ঘ.চর্যাপদ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ প্রাপ্ত চর্যাপদের পদকর্তা কয়জন? ক.১৯ খ.২৩ গ.২৫ ঘ.২৭ উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগের নিদর্শন কোনটি? ক.নিরঞ্জনের রুষ্মা খ.দোহাকোষ গ.গুপিচন্দ্রের সন্ন্যাস ঘ.ময়নামতির গান উত্তরঃ খ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যের আদি গ্রন্থ কোনটি? ক.শ্রীকৃষ্ণ বিজয় খ.শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন গ.শূন্যপূরাণ ঘ.চর্যাপদ উত্তরঃ ঘ প্রশ্নঃ হরপ্রসাদ শাস্ত্রী কবে সম্পাদিত আকারে চর্যাপদ প্রকাশ করেন? ক.১৯০৭ সালে খ.১৯০৯ সালে গ.১৯১৬ সালে ঘ.১৯২৩ সালে উত্তরঃ গ প্রশ্নঃ বাংলা সাহিত্যে আধুনিক যুগের সুত্রপাত– ক.১৩৫১ সাল থেকে খ.১৬০১ সাল থেকে গ.১৭০১ সাল থেকে ঘ.১৮০১ সাল থেকে উত্তরঃ ঘ

পত্র-পত্রিকা

  🌼🌼গুরুত্বপূর্ণ পত্র পত্রিকা ও সম্পাদকের নাম🌼🌼 ^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^^ 🔘বেঙ্গল গেজেট 〰〰জেমস অগাষ্টাস হিকি 🔘দিকদর্শন (মাসিক)〰〰জন ক্লার্ক মার্শম্যান 🔘সংবাদ প্রভাকর 〰〰 ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত 🔘সংবাদ রত্নাবলী 〰〰ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত 🔘পাষণ্ড পীড়ন 〰〰ঈশ্বরচন্দ্র গুপ্ত 🔘সমাচার দর্পণ 〰〰উইলিয়াম কেরী 🔘বাঙাল গেজেট 〰〰গঙ্গাকিশোর ভট্টাচার্য 🔘মীরাতুল আখবার 〰〰রাজা রামমোহন রায় 🔘ব্রাহ্মণ সেবধি 〰〰রাজা রামমোহন রায় 🔘সর্বশুভঙ্করী 〰〰ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর 🔘ঢাকা প্রকাশ 〰〰কৃষ্ণচন্দ্র মজুমদার 🔘সমাচার চন্দ্রিকা 〰〰ভবানীচরণ বন্দ্যোপাধ্যায় 🔘তত্ত্ববোধিনী 〰〰অক্ষয়কুমার দত্ত 🔘বঙ্গদর্শন 〰〰বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় ও পরবর্তীতে মোহিতলাল মজুমদার 🔘মাসিক পত্রিকা 〰〰প্যারীচাঁদ মিত্র ও রাধানাথ শিকদার 🔘সাধনা 〰〰রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর 🔘সবুজপত্র 〰〰প্রমথ চৌধুরী 🔘কল্লোল (মাসিক) 〰〰দীনেশরঞ্জন দাস 🔘কালিকলম 〰〰ত্রেমেন্দ্রমিত্র 🔘সমাচার সভারাজেন্দ্র〰শেখ আলীমুল্লাহ 🔘জগদুদ্দীপক ভাঙ্কর 〰মৌলভী রজব আলী 🔘আজীজন নেহার 〰〰মীর মোশাররফ হোসেন 🔘গ্রামবার্তা 〰〰কাঙ্গাল হরিনাথ 🔘আল এসলাম 〰〰মাওলানা আকরাম খাঁ 🔘সওগাত 〰〰মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন 🔘মোসলেম ভারত 〰〰মোজাম্মেল হক 🔘ধূমকেতু 〰〰কাজী নজরুল ইসলাম 🔘লাঙ্গল 〰〰কাজী নজরুল ইসলাম 🔘দৈনিক নবযুগ 〰〰কাজী নজরুল ইসলাম 🔘শিখা (বার্ষিক) 〰〰আবুল হোসেন 🔘শিখা 〰〰কাজী মোতাহার হোসেন 🔘এডুকেশন গেজেট 〰রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায় 🔘সাম্যবাদী 〰〰খান মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন 🔘জয়তী 〰〰আব্দুল কাদির 🔘দৈনিক আজাদ 〰〰মোহাম্মদ আকরাম খাঁ 🔘বান্ধব 〰〰কালীপ্রসন্ন ঘোষ 🔘শিক্ষক 〰〰কাজী এমদাদুল হক

বাংলা সাহিত্যের বিখ্যাত উক্তি

বিষয় : উক্তি। 10 থেকে 40 তম বিসিএস পর্যন্ত 14টা প্রশ্ন এসেছে। 1.‘কাঁদতে আসিনি, ফাঁসির দাবী নিয়ে এসেছি’ * মাহবুব উল আলম চৌধুরী 2. “বাতাসে লাশের গন্ধ ভাসে” * রুদ্র মুহাম্মদ শহিদুল্লাহ্ 3.’বামন চিনি পৈতা প্রমাণ বামনী চিনি কিসে রে।’ * লালন 4. সাহিত্য জাতির দর্পন স্বরূপ * প্রমথ চৌধুরী 5. সুশিক্ষিত লোক মাত্রই স্বশিক্ষিত * প্রমথ চৌধুরী 6.“মানুষের উপর বিশ্বাস হারানো পাপ’ * রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর 7. ‘আসাদের শার্ট আজ আমাদের প্রাণের পতাকা।’ * শামসুর রাহমান 8. ‘ক্ষুধার রাজ্য পৃথিবী গদ্যময় পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসানো রুটি’ * সুকান্ত ভট্টাচার্য। 9. ‘মন্ত্রের সাধন কিংবা শরীর পাতন’।* ভারতচন্দ্র 10. ‘‘আমি থাকি মহাসুখে অট্টালিকা ‘পরে তুমি কত কষ্ট পাও রোদ, বৃষ্টি, ঝড়ে।” * রজনীকান্ত সেন 11.“এতই যদি দ্বিধা তবে জন্মেছিলে কেন?” * নির্মলেন্দু গুণ 12.‘রক্ত ঝরাতে পারি না তো একা, তাই লিখে যাই এ রক্ত লেখা’ * কাজী নজরুলর ইসলাম 13. “প্রণমিয়া পাটনী কহিল জোর হাতে আমার সন্তান যেন থাকে দুধে ভাতে” * ভারতচন্দ্র রায়গুনাকর 14. “আমারে নিবা মাঝি লগে?” # মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়, পদ্মা নদীর মাঝি” 15.‘সাত কোটি সন্তানের হে মুগ্ধ জননী, রেখেছ বাঙালী করে মানুষ করনি।’ * রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর 16. ‘বিপদে মোরে রক্ষা কর এ নহে মোর প্রার্থনা বিপদে আমি না যেন করি ভয়’ * রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর 17.‘বাংলার মুখ আমি দেখিয়াছি, তাই আমি পৃথিবীর রূপ দেখিতে চাই না আর’ * জীবনানন্দ দাশ 18. ‘‘আমি যদি হতাম বনহংস বনহংসী হতে যদি তুমি” * জীবনানন্দ দাশ। 19. ‘‘মহাজ্ঞানী মহাজন,যে পথে ক’রে গমন হয়েছেন প্রাতঃস্মরনীয়।” * হেমচন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় 20. ‘‘সকলের তরে সকলে আমরা প্রত্যেকে মোরা পরের তরে।” * কামিনী রায়। 21. ‘সই, কেমনে ধরিব হিয়া আমার বধুয়া আন বাড়ি যায় আমার আঙিনা দিয়া।’ * চন্ডিদাস। 22.‘রূপলাগি অখিঁ ঝুরে মন ভোর প্রতি অঙ্গ লাগি কান্দে প্রতি অঙ্গ মোর।’ * চন্ডিদাস। 23. ‘‘কুহেলী ভেদিয়া জড়তা টুটিয়া এসেছে বসন্তরাজ” * সৈয়দ এমদাদ আলী। 24. “মানুষ মরে গেলে পচে যায় ,বেঁচে থাকলে বদলায়…” * মুনির চৌধুরী, রক্তাক্ত প্রান্তর 25. ‘অভাগা যদ্যপি চায় সাগর শুকায়ে যায়” * মুকুন্দরাম।

ভূপ্রকৃতি

  বাংলাদেশ বিষয়াবলি ১. পৃথিবীর বৃহত্তম ব-দ্বীপ ?বাংলাদেশ। ২. বাংলাদেশকে বৃহত্তম ব-দ্বীপ বলার কারণ?দুটি হিমালয়ী নদী (গঙ্গ(পদ্মা) ও ব্রহ্মপুত্র (যমুনা) সম্মিলিত স্রোতধারায় বিশ্বের যেকোন নদী -ব্যবস্থার তুলনায় বঙ্গোপসারে সবচেযে বেশি অবক্ষেপ এনে ফেলেছে । এই দুই অপর হিমালয়ী নদী মেঘনায়র সহযোগে যে ব-দ্বীপ সৃষ্টি করেছে, সেটি গঙ্গা, ব্রহ্মপুত্র ও মেঘনা ব-দ্বীপ বা বঙ্গীয় ব-দ্বীপ নামে পরিচিত।আর এটিই বিশ্বের বৃহত ব-দ্বীপ।বাংলাদেশে অবস্থিত ব-দ্বীপের আয়তন ৮০, ০০০ বর্গ. কি.মি । অন্য দিকে ভিয়েতনামের মেকং ব-দ্বীপের আয়তন ৩৯,০০ ০বর্গ. কি.মি। ৩. ভূ-প্রকৃতি অনুসারে বাংলাদেশকে প্রধানত ভাগ করা যায়? ৩ ভাগে ✓টারশিয়ারী যুগের পাহাড় সমূহ ✓প্লাইস্টোসিন কালের সোপানসমূহ ✓প্লাবন সমভূমি অঞ্চল ৪. বাংলাদেশের প্রাগৈতিহাসিক প্রত্নস্থল পাওয়া যায় কোন ভূমিরূপে? টারশিয়ারি উচ্চভূমি ও প্লাইস্টোসিন টেরেস ৫. ভূতাত্ত্বিক ভাবে বাংলাদেশের সবচেয়ে পুরাতন ভূমিরূপ গঠিত হয়? টারশিয়ারি যুগে। ৬. বাংলাদেশের পাহাড় শ্রেণীর ভূতাত্ত্বিক যুগের ভূমিরূপ হচ্ছে? টারশিয়ারী যুগের। ৭. অবস্থান অনুসারে বাংলাদেশের টারশিয়ারী পাহাড় কে কয় ভাগে ভাগ করা হয়? ২ ভাগে ✓দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলের পাহাড় সমূহ(রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়ি, বান্দরবান ও চট্টগ্রাম জেলার অংশবিশেষ)। ✓উত্তর ও উত্তর পূর্বাঞ্চলের পাহাড় সমূহ(ময়মনসিংহ, ও নেত্রকোনা জেলার উত্তরাঞ্চল, সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলায় অবস্থিত ছোট-বড় বিচ্ছিন্ন পাহাড়সমূহ নিয়ে অঞ্চল গঠিত)। ৮. বাংলাদেশের পাহাড়ি এলাকার গড় উচ্চতা কত ফুট? ২০০০ ৯. প্লাইস্টোসিন কালের সোপানসমূহ কে ভাগ করা যায়?৩ ভাগে। ✓বরেন্দ্রভূমি (উত্তরবঙ্গের পদ্মা ও যমুনার দোয়াব অঞ্চলের মধ্যভাগে নওগাঁ, রাজশাহী ,বগুড়া , জয়পুরহাট, গাইবান্ধা ,রংপুর ও দিনাজপুর জেলার অংশবিশেষ নিয়ে বরেন্দ্রভূমি গঠিত) ✓মধুপুর ও ভাওয়ালের গড় (উত্তরে পুরাতন ব্রহ্মপুত্র নদ হতে দক্ষিনে বুড়িগঙ্গা নদী পর্যন্ত অঞ্চল বিস্তৃত।টাঙ্গাইল ও ময়মনসিংহ অঞ্চল মধুপুর এবং গাজীপুরের অঞ্চলের ভাওয়ালের গড় নামে পরিচিত। লালমাই পাহাড় (লালমাই পাহাড় কুমিল্লা শহরের ৮ কিলোমিটার (৫ মাইল)পশ্চিমে অবস্থিত)। ১০. বাংলাদেশের সবচেয়ে উঁচু পর্বত শৃঙ্গের নাম কি? তাজিংডং। ১১. তাজিংডং মারমা শব্দ এবং এর অর্থ গভীর অরণ্যেও পাহাড়। ১২. তাজিংডং বিজয় নামে ও পরিচিত। ১৩. তাজিংডং পর্বত কোন জেলায়? বান্দরবান। ১৪. কেওকারাডাং পাহাড় কোথায় অবস্থিত? বান্দরবান। ১৫. বাংলাদেশের সবচেয়ে উচু পাহাড় চূড়ার নাম কি? গারো (গারো পাহাড় ভারতের মেঘালয় রাজ্যের গারো-খাসিয়া পর্বতমালার একটি অংশ। এর কিছু অংশ ভারতের অসম রাজ্য ও বাংলাদেশের শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ি উপজেলায় অবস্থিত এটা বাংলাদেশের সব থেকে বড় পাহাড়।এছাড়া ময়মনসিংহ ও সুনামগঞ্জ জেলায় এর কিছু অংশ আছে। গারো পাহাড় এর বিস্তৃতি প্রায় ৮০০০ বর্গ কিলোমিটার) ১৬. চন্দ্রনাথ পাহাড় কোন জেলায় অবস্থিত? সীতাকুণ্ডে (এ পাহাড়ে হিন্দুদের তীর্থস্থান “চন্দ্রনাথ মন্দির” ও সীতাকুন্ড ইকো পার্ক অবস্থিত) ১৭. লালমাই পাহাড় কোন জেলায় অবস্থিত? কুমিল্লা (আয়তন ৩৪ বর্গ কিলোমিটার। উচ্চতা ২১ মিটার) ১৮. চিম্বুক পাহাড় কোথায় অবস্থিত? বান্দরবান (এ পাহাড় কে বাংলাদেশ দার্জিলিং, পাহাড়ের রানী বলা হয়) ১৯. নীলগিরি পাহাড় কোথায় অবস্থিত? বান্দরবান। ২০. জৈয়ন্তিকা পাহাড় কোথায় অবস্থিত? সিলেটে। ২১. আলুটিলা পাহাড় কোথায় অবস্থিত? খাগড়াছড়ি। ২২. বাংলাদেশের কোন পাহাড় কে পাহাড়ের রানী বলা হয়? চিম্বুক পাহাড়।  

English Literature

  ৪১তম বিসিএস প্রিলি প্রস্তুতি English Literature থেকে বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষায় আসা – গুরুত্বপূর্ণ ১০০ টি লেখক ও বই 1):- David Copperfield → Charles Dickens 2):- Hamlet → William Shakespeare 3):- The Rime of the Ancient Mariner → Samuel Taylor Coleridge 4):- Das Capital → Karl Mark 5):- Animal Farm → George Orwell 6):- Dialogues → Plato 7):- Tempest → William Shakespeare 8):- Main Kemp → Ad loaf Hitler 9):- Mother → Maxim Gorky 10):- As You Like it → William Shakespeare 11):- Paradise Lost → John Milton 12):- The Tale of Two Cities → Charles Dickens 13):- The Merchant of Venice → William Shakespeare 14):- Pride and Prejudice → Jane Austen 15):- All’s Well that Ends Well → William Shakespeare 16):- Anna Karenina → Leo Tolstoy 17):- Origin of Species → Charles Darwin 18):- Discovery of India → Johor Lal Nehru 19):- Asian Drama → Gunner Myrdal 20):- The Old Man and The Sea → Earnest Hemingway 21):- Julius Caesar → William Shakespeare 22):- Man and Superman → George Bernard Shaw 23):- War and Peace → Leo Tolstoy 24):- Gulliver’s Travels → Jonathan Swift 25):- Heaven and Earth → Lord Byron 26):- Blue Bird → Lord Alfred Tennyson 27):- Othello → William Shakespeare 28):- India Wins Freedom → Abul Kalam Azad 29):- Marriage and Moral → Bertrand Russell 30):- God of the Small Things → Arundhuty Roy 31):- Caesar and Cleopatra → George Bernard Shaw 32):- Romeo and Juliet → William Shakespeare 33):- Jungle Book → Rudyard Kipling 34):- Lycidas → John Milton 35):- Emma → Jane Austen 36):- A pair of Blue Eyes → Thomas Hardy 37):- Odyssey → Homer 38):- Memories of the Second World War → Winston Churchill 39):- For Whom the Bell Tolls → Earnest Hemingway 40):- Wealth and Nation → Adam Smith 41):- West Land → T.S Eliot 42):- Vanity Fair → W.M Thackeray 43):- Prince → Machiavelli 44):- Republic → Plato 45):- Freedom → Bertrand Russell 46):- A Long Walk to Freedom → Nelson Mandela 47):- Robinson Crusoe → Daniel Defoe. 48):- Sons and Lovers, The Rainbow → D.H Lawrence 49):- Ulysses → Lord Alfred Tennyson 50):- Sense and Sensibility → Jane Austen 51):- Roots → Alex Haley 52):- To Skylark → P. B Shelly 53):- Time Machine → H. W Wells 54):- Try and Try Again → W.E Hick son 55):- Seven Seas → Rudyard Kipling 56):- Round The Eighty Days → Jules Verne 57):- Waiting For Goddot → Samuel Becket 58):- Things Fall Apart → Chinua Achebe 59):- Silent Women → Ben Johnson 60):- Wuthering Heights → Emile Bronte 61):- The Way of the World → William Congreve 62):- Voyage of Lilliput → Jonathon Swift 63):- Top Secret → Henry Fielding 64):- Twelfth Night → William Shakespeare 65):- Utopia → Sir Thomas Moore 66):- Tom Jones → Henry Fielding 67):- The Return of the Native → Thomas Hardy 68):- The Alchemist → Ben Jonson 69):- Tess of the D’Urbervilles → Thomas Hardy 70):- Scholar Gipsy → Matthew Arnold 71):- The Rape of the Lock → Alexander Pope 72):- Prelude → William Wordsworth 73):- Ode to the West Wind → P.B Shelly 74):- Great Expectations → Charles Dickens 75):- King Lear → William Shakespeare 76):- Kublai Khan → Samuel Taylor Coleridge 77):- Isabella → John Keats 78):- Measure and Measure → William Shakespeare 79):- In Memoriam → Lord Alfred Tennyson 80):- Pilgrim’s Progress → John Bunyan 81):- Oliver Twist → Charles Dickens 82):- Paradise Regained → John Milton 83):- Iliad → Homer 84):- Divine Comedy → Dante 85):- Crime and Punishment → Dostoevsky 86):- A Brief History Of Time → Stephen Hawking 87):- A Farewell to Arms → Earnest Hemingway 88):- A Midsummer’s Nights Dream → William Shakespeare 89):- Adonis → P. B Shelly 90):- Akbar Nama → Abul Fazal 91):- Canterbury Tales → Geoffrey Chaucer 92):- Comedy of Errors → William Shakespeare 93):- Don Juan → Lord Byron 94):- Dr. Faustus → Christopher Marlowe 95):- Politics → Aristotle 96):- Volpone → Ben Jonson 97):- Dictionary → Samuel Johnson 98):- A Passage to India → E.M. Foster 99):- Macbeth → William Shakespeare 100):- S amson Agonists → John Milton